ভাঙ্গায় জামায়াতের গোপন বৈঠক চলাকালে সাবেক জেলা আমিরসহ ৪৬ নেতা-কর্মী আটক

মাসুম আল ইসলাম, ভাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি:- ফরিদপুরের ভাঙ্গায় উপজেলার চান্দ্রা ইউনিয়নের সোনামুয়ী গ্রামের কয়ালবাড়ি মসজিদ থেকে সোমবার সকালে জামায়াতের গোপন বৈঠক চলাকালে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের ৪৬ নেতা-কর্মীকে আটক করেছে থানা পুলিশ। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী সাঈদুর রহমান বলেন, সরকারের উন্নয়ন মূলক কাজে নাশকতা সৃষ্টির জন্য গোপন বৈঠক চলাকালে এলাকাবাসী থানায় খবর দিলে মসজিদ থেকে ৪৬ জন জামায়াত নেতা কর্মীদের আটক করা হয়। আটককৃতদের বাড়ী ফরিদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলায়। তিনি আরো বলেন, ভাঙ্গা উপজেলা জামায়াতের আমির ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সরোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে ভোর রাত থেকে তারা ওই মসজিদে গোপন বৈঠক শুরু করে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) মিরাজ হোসেন বলেন, মামলার আসামীরা ভাঙ্গা বিশ্বরোডের চৌরাস্তা মোড়ে নির্মানাধীন ফ্লাইওভার কাজে নিয়োজিত বিদেশীদের ক্ষতি করতেই গোপন বৈঠক করছিল। আসামীদের বিকালেই কড়া নিরাপত্তায় আদালতে প্রেরন করা হয়েছে বলে তিনি জানান।


এব্যাপারে থানার উপ-পরিদর্শক শামছুল হক সুমন বাদী হয়ে ভাঙ্গা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। মামলার আসামীরা হলো জেলা জামায়াতের সাবেক আমির ও বর্তমান আঞ্চলিক সহকারী মোঃ দেলোয়ার হোসেন (৬৫), উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও ভাঙ্গা উপজেলা জামায়াতের আমির সরোয়ার হোসাইন (৬০), চান্দা ইউনিয়ন জামায়াতের আমির, চান্দ্রা ইউনিয়ন আমির আফতাব উদ্দিন মিয়া (৬৪), চান্দ্রা ইউনিয়ন জামায়াত সম্পাদক আব্দুস সালাম মুন্সি (৬৫), ভাঙ্গা উপজেলা জামায়াতের রোকন ডাঃ এনায়েত হোসেন (৫১), রিপন হাওলাদার (২৮), জিন্নাত আলী (৫৩), উপজেলা জামায়াতের সেত্রেুটারি রোকনউদ্দিন খান (৬৭), জাহাঙ্গীর হোসেন (৪০), সাফায়েত হোসেন আজাদ (৪২), রকিবুল হাসান মাসুম (৩২), জামায়াতের রোকন আক্তার উদ্দিন তালুকদার (৫৩), মোঃ মিজানুর রহমান (৪২), ফজলুল হক (৬৫), সিরাজুল হক চৌধুরী (৬৫), মোঃ আলমগীর হোসেন (৪৭), জামায়াতের রোকন মোঃ মজিবুর রহমান মোল্লা (৬০), আইয়ুব আলী মোল্লা (৬২), মোঃ আজিম খান (৬৩), হাজী নুরুল হক মোল্লা (৭৫), মোঃ আলী হোসেন (৬৩), সরকারি কেএম কলেজের প্রভাষক আরিফুজ্জামান (৪২), তুজারপুর ইউনিয়ন জামায়াতের আমির ফজলূর রহমান (৬৫), নাসির উদ্দিন (৪৫), মোঃ আবু জাফর (৪৮), মহিউদ্দিন আহম্মেদ (৭০), মিজানুর রহমান (৩৫), উপজেলা জামায়াতের সাংগঠনিক সম্পাদক শামছুল আলম (৩৮), মোঃ রিপন সেখ (২৯), মোঃ রাইসুল ইসলাম (৩০), মোঃ রুমানউল্লাহ (৫০), জামায়াতের রোকন রইসউদ্দিন (৬০), মহিউদ্দিন আহম্মেদ (৩৯), মাহামুদুল হক বাহার (৩৮), জামায়াতের রোকন তৈয়াবআলী মোল্লা (৫১), আহম্মেদ আলী (৪০), কহিনুর মিয়া (৬৫), মোঃ সুমন হোসেন (২২), মোঃ আঃ রসিদ হাওলাদার রাসেদ (৫৮), ওহিদুল ইসলাম (২৮), মাওলানা গিয়াসউদ্দিন (৭০), হাজী আঃ রসিদ মোল্লা (৬৫), মোঃ আব্দুস সালাম (৪৮), মোঃ বিল্লাল হাওলাদার (৩২), মোঃ কবিরউদ্দিন মিয়া (৫৭), সুর্য মিয়া মোল্লা (৪৮)।
এব্যাপারে এএসপি (ভাঙ্গা সার্কেল) গাজী রবিউল ইসলাম বলেন, গুরুত্বপূর্ণ আসামীদের জন্য রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে। আসামীদেরকে আটকের সময় তাদের কাছ থেকে জিহাদী বই উদ্ধার করা হয়।