Spread the love
image_pdfimage_print

জুলফিকার আমীন সোহেল : মঠবাড়িয়া পিরোজপুর জেলা প্রতিনিধি : আজকের ঘটনা :

চতুর্থ শ্রেণীর স্কুলছাত্রী, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য, সাংবাদিক কন্যা ঊমির (৯) খুনির ফাঁসির দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাব সন্মূখ সড়কে মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ১১টায় ঢাকাস্থ মঠবাড়িয়া বাসি এ কর্মসূচির আয়োজন করেন। এতে ছোট্ট মনুদের জন্য ভালবাসা নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সংহতি প্রকাশ করেছেন। নিহত উর্মি দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলা সংবাদদাতা জুলফিকার আমীন সোহেলের মেয়ে। ঊর্মি স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী ছিলো।
ঘন্টাব্যাপী এ মাবববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে মঠবাড়িয়া নাগরিক কমিটির আহবায়ক মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুল হক খান মজনুর সভাপতিত্বে ও আ‘লীগ নেতা ওবাইদুল হক খানের সঞ্চালনায় খুনি ছগির আকনের ফাঁসি দাবি করে বক্তব্য দেন, বরগুনা-২ আসনের সাবেক সাংসদ মো. হুমায়ূন কবির হিরু, মঠবাড়িয়া উপজেরা আ‘লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এমাদুল হক খান, সাংবাদিক নেতা আজমল হক হেলাল, প্রকৌশলী বেলায়েত হোসেন, মঠবাড়িয়া উপজেলা আ‘লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আজিজুল হক সেলিম মাতুব্বর, কেন্দ্রীয় যুলীগের সহ-সম্পাদক তাজউদ্দিন আহম্মেদ, মঠবাড়িয়া উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুলহাস শাহিন, সাংবাদিক জামাল এইচ আকন, মোস্তফা কামাল বুলেট ও নিহত ঊর্মির পিতা জুলফিকার আমীন সোহেল। সমাবেশে বক্তারা ঊর্মির খুনির উপযুক্ত বিচারের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
উল্লেখ্য, গত ২১ জুলাই ঊর্মি নিখোঁজ হলে ২৩ জুলাই বাড়ির ৫‘শ গজ দুরে পরিত্যাক্ত বাগানের একটি নালার মধ্যে গলায় ফাঁস দেওয়া ও হাত বাঁধা ঊর্মির ভাসমান লাশ দেখতে পান স্বনরা। পরে খবর পেয়ে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠান। এঘটনায়  নিহত ঊর্মির পিতা জুলফিকার আমীন সোহেল ২৩ জুলাই রাতেই মঠবাড়িয়া থানায় অজ্ঞাত আসামী করে মামলা করলে পুলিশ ছগির আকন (৩৫)কে গ্রেফতার করেন। ছগির পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামের মৃত. কুদ্দুস আকনের ছেলে। বর্তমানে ছগির জেল হাজতে রয়েছে।