Spread the love
image_pdfimage_print

মঠবাড়িয়া ফিরোজ, প্রতিনিধি  : আজকের ঘটনা :

পিরোজপুরের মঠবাড়ীয়ায় উপজেলার মিরুখালী ইউনিয়নের ৩০নং বড়শৌলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় প্রতি বছর ঝড়ে যাচ্ছে অসংখ্য শিক্ষার্থী। এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠনটি ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়ে সুনামের সাথে পাঠদান করে আসছে। বিদ্যালয়টি এ অঞ্চলের সব চেয়ে পুরাতণ। বড় শৌলা বাজার হতে মাত্র দুই কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্ব দিকে এটি অবস্থিত। যাতায়াতের জন্য পাকা বা ইটের রাস্তাঘাট না থাকায় ছাত্র-ছাত্রী সহ এলাকার সাধারণ মানুষের চলাচলে ব্যপক বাঁধা সৃস্টি হয়। বর্ষা মৌসুমে  এখানকার অবস্থা আরো ভয়াবহ। সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় মাঠ পর্যায়ে বিদ্যালয়ে পরিদর্শনের জন্য কর্মকর্তারা তেমন আসতে পারেন না। খুব বিশেষ প্রয়োজন অতিকষ্টে তারা আসা-যাওয়া করে থাকেন। বিদ্যালয়টিতে যাতায়াতের জন্য যে কাঁদা মাটির রাস্তা ছিলো সেটা সংস্কারের অভাবে ভেঙ্গে খাল-বিলে অনেক আগে বিলিন হয়ে গেছে। স্থানীয়রা নিজস্ব প্রচেষ্টায় নামমাত্র মাটির রাস্তা তৈরি করেছেন।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে এ বিষয়ে বার-বার আবেদন করলেও কোন পদক্ষেপ বা নজর দেন নাই। তাছাড়া সংসদ সদস্য ডাঃ রুস্তুম আলী ফরাজীর কাছে আবেদন করলে কয়েক মাস আগে তার স্ত্রী বিদ্যালয়টি পরিদর্শণ করেন। এসময় তিনি যাতায়াতের জন্য দুই কিলোমিটার পাকা বা ইটের রাস্তা তৈরি করার ব্যবস্থা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু তা এখোন পর্যন্ত ব্যাস্তবায়ন হয়নি।
সরেজমিনে দেখাগেছে, বিদ্যালয়টিতে যাতায়াতের জন্য পূর্বেও রাস্তাটি সংস্কারের অভাবে ভেঙ্গে খাল-বিলে অনেক আগে বিলিন হয়ে গেছে। স্থানীয়রা নিজস্ব প্রচেষ্টায় নামমাত্র মাটির রাস্তা তৈরি করেছেন। এমনকি বিদ্যালয়ের মাঠে পুকুরের মতো পানি জমে রয়েছে। শিক্ষকরা জানালেন শুকনা মৌসুমেও এ খেলার মাঠে পানি জমে থাকে। ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রী তামান্না, ৫ম শ্রেণীর ছাত্র সাব্বির বলে, রাস্তা না থাকার কারনে আমাদের স্কুলে আসতে কষ্ট হয়, আমাদে পোষাক নষ্ট হয়ে যায়।
ওই গ্রামের বাসিন্দা প্রভাষক জুলহাস শাহিন জানান, আমাদের এ অঞ্চলটা এমনিতেই নিচু। প্রায় ১২ মাসই মাঠে পানি জমে থাকে। যে কারনে রাস্তা-ঘাটের এ বেহাল অবস্থা। কোমলমতি শিশুদের শিক্ষা ব্যাবস্থা নিশ্চিত করতে রাস্তাটি দ্রুত সংস্কারের দাবী জানাই। শিবলী মোল্লা নামের এক যুবক জানান, বিদ্যালয়টি আমারই বাড়ির সামনে অবস্থিত। বিদ্যালয়টি এ অঞ্চলের সব চেয়ে পুরাতণ। সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় প্রতি বছর ঝড়ে যাচ্ছে অসংখ্য শিক্ষার্থী। শিক্ষা ব্যাবস্থা নিশ্চিত করতে রাস্তাটি দ্রুত সংস্কারের দাবী জানাই।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম ফরিদ উদ্দিন সড়কটি দ্রুত নির্মণ ও সংস্কারের পদক্ষেপ নিবেন বলে জানান।